নিয়মিত সাইক্লিং এর উপকারিতা কি কি

সাইকেল ! ২ চাকার একটি যানবাহন অথচ নিয়মিত সাইক্লিং করলে অনেক ধরনের উপকার পাওয়া যায় যা আমরা অনেকে জেনেও জানি না বা সুযোগ হয়ে উঠে না। বরং কেও সাইক্লিং করে পাশ দিয়ে গেলে আমরা হাসি ঠাট্টা করি এমনও হয় মাঝে মধ্যে। তবে সময়ের সাথে সাথে এই চিত্র অনেক বদলে গেছে, এক সময় গ্রামে প্রতিটি ঘরেই অন্যতম সহায়ক যানবাহন হিসাবে সাইকেল ছিল, এখন শহরেও দিনে দিনে সাইক্লিং অনেক বেড়ে গেছে, কেও স্বাস্থ্য সচেতনার জন্য, কেও সময় বাঁচানোর জন্য, কেও ট্র্যাফিক এড়িয়ে চলার জন্য, কেওবা শখেও, আবার কেও কেও ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী সাইক্লিং করছেন।

আমরা অনেকেই সময়, ব্যস্ততা, বাস্তবতার খাতিরে অনেক কিছুই করতে পারি নাহ, তবে আপনি জানেন কি, আপনি যদি এখনই স্বাস্থ্যের এই ছোট ছোট বিষয় গুলো নজর না দেন, তাহলে একটু বয়স হলেই পড়তে হবে নানান বিপাকে, হ্যাঁ বিশ্বাস হচ্ছে না, সময় পেলে ঢাকার যে কোন একটি হাসপাতালে ডু মেরে আসুন। এখন তো আর বয়স দেখে রোগ বালাই আসে নাহ। যে কোন বয়সের যে কেও হাইপারটেনশন (ব্লাড প্রেসার / উচ্চ রক্তচাপ), ডাইবেটিস, ক্যান্সার, কিডনি জনিত সমস্যা, হাড় সংক্রান্ত সমস্যা, মানসিক চাপ ইত্যাদি নানান জটিল রোগে আক্রান্ত হয়। তাই সচেতনতা শুরু হউক এখন থেকেই। আর হ্যাঁ করোনার সময়ে সাইকেল হউক বিকল্প যানবাহন যা সব দিক থেকেই কাজে দিবে।

আমরা দিন শেষে ভাবি, এখন তরুন বয়স খাওয়া দাওয়া করে নেই ভালো ভাবে, এত স্বাস্থ্য নিয়ে ভাবলে অফিস/ক্লাস/জীবন/আনন্দ/রুচি এই সব নিয়ে ভাববো কখন? ঠিক তাই, আপনি অবাক হবেন যে আমরা এখন মেন্টাল প্রিপ্রারেশন সেট আপ করে নেই যে চিকিৎসার জন্য একটা ভালো এমাউন্ট জমানো শুরু করি, যাতে শেষ বয়সে চাকরি শেষ হলে হাসপাতালের বিল দেওয়া নেওয়া নিয়ে বেগ পোয়াতে না হয়। মুটামুটি হাসপাতালের চিত্র এই রকমই, বিশ্বাস হচ্ছে নাহ ঘুরে আসুন কোন ক্লিনিক বা মেডিকেল কলেজে। আপনার ধারণা চেইঞ্জ হয়ে যাবে, তাই সময় থাকতেই এই চিত্রটা পাল্টে ফেলুন, এই ধরনের চিন্তা ভাবনা থেকে বের হয়ে আসুন এবং অন্যকেও উৎসাহ দিন নিয়মিত ব্যায়াম বা কায়িক পরিশ্রম করার জন্য।

বলছি না আপনাকে সাইক্লিংই করতে হবে, আরও অনেক কিছু আছে, যেমন নিয়মিত দৌড়ানো, সাঁতার কাটা, জিম করা, ইয়গা করা, নিয়মিত সকাল বিকাল হাঁটা রুটিন করে আরও নানান কিছু। তবে সাইক্লিং কেন করবেন না কি ধরনের উপকারিতা আপনি পাবেন তা দেখে নিনঃ

নিয়মিত সাইকেল চালালে কি কি উপকারিতা পাওয়া যায়ঃ

  • স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে।
  • নিয়মিত সাইক্লিং করলে খুব ভালো ঘুম হবে।
  • শরীরের ত্বক ভালো রাখে, বয়সের চাপ পড়ে নাহ।
  • আপনার ব্রেনের ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।
  • নিয়মিত সাইক্লিং করলে ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে থাকে।
  • গবেষণায় বলে হার্ট সংক্রান্ত যে কোন ঝুঁকি ৫০% কমিয়ে দেয়।
  • নিয়মিত সাইক্লিং এ ওজন কমাতে সাহায্য করে।
  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।
  • রক্তের কোলেস্টরেল কমাতে বিশেষ ভূমিকা রাখে।
  • আপনি খুব দ্রুত আপনার লোকেশনে পোঁছাতে পারবেন।
  • আপনার সেক্স লাইফে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।
  • আপনার লাং ভালো রাখে, অতিরিক্ত অক্সিজেন পাওয়া যায়।
  • গর্ভবতী মায়েদের জন্য উপকারী, যদিও বাংলাদেশে এটা খুব কম দেখা যায়।
  • মেয়েদের ব্রেস্ট ক্যান্সার ও যে কারো ক্যান্সার প্রতিরোধে সাইক্লিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
  • কাজের গতি বেড়ে যায়, কাজে মনযোগী আসে।
  • পরিবেশের কোন ক্ষতি করে নাহ, পরিবেশ বান্ধব।
  • যখন অনেক টায়ার্ড মনে হবে, সাইক্লিং করুন।
  • শরীরের ইস্টেমিনা বাড়ায়, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।
  • মানসিক চাপ কমে, পজেটিব মাইন্ড সেট তৈরি হয়।
  • মন মানসিকতা সতেজ থাকে ও শরীর ফিট থাকে।

কখন ও কোথায় চালাবেনঃ

  • সকালে ঘুম থেকে উঠে সাইক্লিং করতে পারেন
  • বিকেলে অথবা সন্ধ্যায় (আপনার সুবিধা জনক সময়ে)
  • খোলা মাঠে অথবা রাস্তায় সুবিধা জনক স্থানে
  • সাথে পানি রাখতে ভুলবেন নাহ
  • লেবু পানি বা স্যালাইন পানি রাখতে পারেন

সতর্কতা ও করনীয়ঃ

  • হেলমেট ব্যবহার করুন (বিকল্প নেই)
  • নিয়মিত সাইকেল পরিষ্কার করুন
  • লক চেক করে নিন, কোথাও সাইকেল রাখলে লক করতে ভুলবেন না
  • সাইকেল বের করার আগে ব্রেক, হাওয়া চেক করে দিন
  • ২ মাসে একবার সার্ভিসিং করুন, নিজে জানলে তো ভালোই
  • মেইন রোড যেমন বাস অথবা ট্রাকের আনাগোনা বেশি এমন রাস্তা পরিহার করুন
  • খুব গভীর রাতে মেইন রোডে সাইকেল চালাবেন না, পেছনে হেড লাইট ব্যবহার করুন
  • কানে হেড ফোন দিয়ে ব্যস্ত সড়কে সাইক্লিং করবেন না
  • রাস্তায় সাইক্লিং করার সময় কারও সাথে রেস করবেন না
  • রঙ সাইডে সাইক্লিং করবেন না, ট্রাফিক আইন মেনে চলবেন

লেখক ও গবেষক – প্রকৌশলী আছিব চৌধুরী

“Love yourself & you will get a way how to live” – Asive Chowdhury

# মেডিসিন থেকে দূরে থাকুন, নিয়মিত শরীর চর্চা করুন এবং সুস্থ্য থাকুন #

আপনার যে কোন মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ দিতে পারেন। পরবর্তীতে কি বিষয় নিয়ে লেখা চান সেটিও জানাতে পারেন ইমেইলের মাধ্যমে (asive.me@gmail.com)

My Research Publication in International Journal | About Asive Chowdhury Learn with Asive | Facebook | Twitter | LinkedIn | Instagram | Blog Spot YouTube | BudgerigarsWiki

I am a Google Local Guide | Wikipedia | Asive’s Blog

I am in Flicker | I am in Google Maps | I am in wikipedia Commons |I am a Designer | I am in Google Site

Email: asive.me@gmail.com, Web: asive.me