০৬০৮ উদ্যোক্তা হাব / ফ্রীল্যান্স / প্যাসিব ইনকাম / ক্যারিয়ার


প্রিয় ০৬০৮, আমি অনেক দিন ধরেই গ্রুপে উদ্যোক্তাদের নিয়ে কাজ করছি, অর্থাৎ যে/যারা উদ্যোক্তাগণ আছেন তাদেরকে এক করা এবং নতুন যে/যারা উদ্যোক্তা হতে চায় তাদের অনুপ্রেরণা ও দিক নির্দেশনা দেওয়া একই সাথে অভিজ্ঞদের কাছ থেকে অভিজ্ঞতা শেয়ার করা ইত্যাদি। আমি বিশ্বাস করি সম্পর্ক / নেটওয়ার্কিং আর দিক নির্দেশনা একটা মানুষের চিন্তা ভাবনা কে এগিয়ে নিতে পারে অনেক দূর। জিগ জিগলারের ফেমাস উক্তি অনুসারে “ স্টপ সেলিং, স্টার্ট হেলপিং” ০৬০৮ উদ্যোক্তা হাব এর একটি স্লোগানও আছে “০৬০৮ চাকরী খুঁজবে না, চাকরী দিবে” আসলেই তাই হবে, যদি এর মধ্য থেকে উদ্যোক্তা তৈরি হয় তাহলে অবশ্যই কর্মসংস্থান এর সৃষ্টি হয়ে যাবে। তবে যে কোন উদ্যোগ নিতে গেলে সেই সম্পর্কে জানাটা জরুরী, সর্বপ্রথম বিশ্বাস করা জরুরী যে আমি পারবো এবং আমাকে পারতেই হবে। দ্বিতীয়ত নিজের ইগো দূর করতে হবে। তৃতীয়ত ধৈর্য্য ও অন্যের প্রতি শ্রদ্ধা এবং সাহায্য করার মন মানসিকতা জরুরী। আর হ্যাঁ সঠিক পার্টনার, সঠিক মেন্টর, সঠিক গাইডলাইনও খুবই গুরুত্বপুর্ন উদ্যোক্তা জীবনে।


ক্যারিয়ার নিয়ে বলতে গেলে শেষ হবে না, এই বয়সে এসে আমরা ক্যারিয়ার নিয়ে অনেক কিছুই হাতে কলমে জানি তারপরও দু একটি কথা না বললেই নয়, আমি একজন কম্পিউটার প্রকৌশলী হয়ে এইসব চিন্তা করতে হবে এমন কথা নেই, এই ভাবনাটা যে কেওই ভাবতে পারে, তবে ক্ষুদ্র পরিসর থেকে যতদূর জানি, বর্তমান বিশ্ব কাগজের সার্টিফিকেট নির্ভর নেই, এখন সব কিছুই অনলাইনে। ক্যারিয়ারে যাওয়ার পুর্বে নিজেকে ভাইবা বোর্ডের জন্য তৈরি করেছি কিনা, নিজের কাজ গুলো অনলাইনে “পোর্টপোলিও” রেডি আছে কিনা, ছট বড় যে কোন কাজই হউক, নিজের সিভিটা আপডেট আছে কিনা, কমিউনিকেশন দক্ষতা ঠিক করেছি কিনা, সিভিতে লেখা কন্টেন্ট গুলো আমি নিজে জানি কিনা, ফটোকপি দোকান থেকে কপি করে সিভি নিয়ে আসার দিন শেষ, যা লিখছি তা কি অন্য কারও কপি করা কিনা, নিজের মত করে কিছু সিভিতে লিখেছি কিনা, নিজের সম্পর্কে লিখতে গিয়ে পরিবারের সম্পর্কে বলে ফেলেছি কিনা, সিভিতে স্বেচ্ছাসেবী কাজের কথা উল্লেখ করেছি কিনা, এই গুলো দেখা ও জানা খুবই জরুরী।


স্কীল খুবই গুরুত্বপুর্ন একটি ব্যাপার, চাকরী বলেন আর উদ্যোক্তা জীবন বলেন, দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা খুবই জরুরী। সবাই উদ্যোক্তা হবে এমন কোন কথা নেই, বেশির ভাগই চাকরীও করবে এটাই স্বাভাবিক আমাদের দেশের সাইকোলজি তাই বলে। তবে যে যাই করেন তার জন্য নিজেকে তৈরি করুন। ধরুন আপনি যে কাজটি ভালো ভাবে পারেন তা আসলেই ১০০% পারেন কিনা, ধরুন আপনি লিখতে পারেন বা আপনি বলতে পারেন তা আপনি ১০০% পারেন কিনা বা কোন গ্যাপ আছে কিনা দেখুন। আপনি কাউকে মোটিভেট করতে পারেন বা আপনি কাউকে অনুপ্রাণিত করতে পারেন এটাও আপনার শক্তি, এটাও আপনার দক্ষতা। কোন কিছুই ফেলনা নয়। শুধু একাডেমি থেকে পাশ করে বের হলেই যদি চাকরী হয়ে যেত বা উদ্যোক্তা হয়ে যেত তাহলে চাকরী নামক বিষয়টিকে সোনার হরিনের সাথে তুলনা করা হত না।
হ্যাঁ ইউনিভার্সিটি থেকে বের হয়েও কিছু শিখতে হয় নিজেকে ইন্ড্রাস্ট্রিতে ফিট করার জন্য নিজের কিছু কাজ বা ডেমো স্কীল্ড হওয়ার জন্য। আমি কেন বলি এই গ্রুপ থেকেই আসবে উদ্যোক্তা, আসবে কর্মসংস্থান, আসবে ক্রেতা ও বিক্রেতার সমাগম। আমরা কয়েকদিন আগে এই গ্রুপেরই আমি সহ আরও ৩জন মিলে একটি ইকমার্স শুরু করেছি “বাজার নং ১” নামে এবং এবং এই গ্রুপের আরও একজনের সাথে শুরু করেছি “এএন ডিজিটাল একাডেমি” (মোশন গ্রাফিক্স লার্নিং) নামে স্কীল্ড একাডেমি, আমাদের কার্জক্রমও শুরু হয়ে গেছে। আমরা ইকমার্স রান করে দিয়েছি একই সাথে এএনডিজিটাল এর মোশন গ্রাফিক্স কোর্স শুরু করে দিয়েছি, এখন ২য় ব্যাচ এর প্রস্তুতি, এই গ্রুপ থেকেও যদি কেও এই দক্ষতা নিতে চাস আগে নিচের দেওয়া আমাদের কাজের ভিডিও দেখে নিস, তারপর সিদ্ধান্ত নিস। আসলে মূল লক্ষ হচ্ছে একটা দক্ষ জেনারেশন তৈরি করা একই সাথে উদ্যোক্তা তৈরি করা। দিন শেষে আপনি যাই করবেন না কেন, আপনাকে সে বিষয়ে জানতে হবে এবং একই সাথে ভালো রিসোর্স গুলো খুজে বের করতে হবে আর দিন শেষে সিদ্ধান্ত আপনাকেই নিতে হবে, কেও এসে জায়গা করে দিবে না, নিজের জায়গা নিজেকে করে নিতে হবে। নিজের কাজ গুলো শেয়ার করুন, জানান দিন আপনিও পারেন, অন্যকে সাহায্য করুন, অন্যের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা তৈরি করুন আর ভালো মানুষ হউন। দিন শেষে পরিবারকে সময় দিন, আর নিজের সাথে কথা বলুন।


ফ্রীল্যান্স ও প্যাসিব ইনকাম এর একটা মাধ্যম হচ্ছে একটা কম্পিউটার ও একটা ভালো মানের ইন্টারনেট। তবে শুরুতেই বলে নেওয়া ভালো, যে “নিজেকে শুনুন” আর হ্যাঁ একই সাথে যে কোন বিষয়ে দক্ষতা। ঘরে বসে ক্লাইন্ট এর কাজ নিয়ে কাজ শেষ করে সাবমিট ফ্রীল্যান্স হিসাবে বলা হয়। এই কাজের জন্য নির্দিস্ট স্থানে বা অফিসে যেতে হয় না, সব কিছুই অনলাইনেই সম্ভব। আর অন্যদিকে প্যাসিব ইনকাম হচ্ছে নিজের করা বেস্ট কাজ গুলো বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে বা ওয়েব সাইটে দিয়ে রাখলেন সেল হলে আপনি একটা নির্দিষ্ট কমিশন পাবেন, যা এফিলিয়েট এবং এসইও’র মাধ্যমেও করা যায়। চিন্তা করুন আপনার কোনটা ভালো লাগে “Do What you Love” চাকরী করেও করা যাবে এমনকি চাকরী না করলেও করা যাবে এটা আপনার ইচ্ছাশক্তির উপর।

হ্যাঁ আমাদের এখন লক্ষ্য ইউনিভার্সিটি থেকে যে/যারা বের হচ্ছে তাদের জন্য বর্তমান বিশ্বের চাহিদা মোশন গ্রাফিক্স, থ্রি ডি এনিমেশন সহ প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইন। বিশেষ করে সার্ভিস বেইজড বা ইকমার্স বিজনেসে এর চাহিদা সহ নিজেদের বিজনেস প্রমোশনের জন্যও জরুরী। জানুন এবং অন্যকে জানান। শেখার শেষ নাই, শুরু করে দিন…দক্ষতা আপনাকে জিতিয়ে দিবে। সব কিছুর জন্য প্রথমেই কৃতজ্ঞতা আল্লাহ্‌র কাছে এবং দ্বিতীয় ০৬০৮ গ্রুপ এর প্রতি। কোন কিছু জানার থাকলে ইনবক্স করিস…


সব শেষে করোনা ভাইরাসে সচেতন হউন, অন্যকে সচেতন করুন। অযথা না জেনে ভুল তথ্য শেয়ার করবেন না। পেনিক হবেন না, বাসায় আসার পর হাত মুখ ভালোভাবে ধৌত করুন, মাস্ক ব্যবহার করুন, আর আল্লাহ্‌র উপর ভরসা রাখুন।

লেখক ও গবেষক – প্রকৌশলী আছিব চৌধুরী

“Love yourself & you will get a way how to live” – Asive Chowdhury

# মেডিসিন থেকে দূরে থাকুন – নিয়মিত শরীর চর্চা করুন এবং সুস্থ্য থাকুন #

আপনার যে কোন মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ দিতে পারেন। পরবর্তীতে কি বিষয় নিয়ে লেখা চান সেটিও জানাতে পারেন ইমেইলের

Asive Chowdhury | Facebook | Twitter | LinkedIn | Google Site | Google Local Guides | Google Plus | YouTube

Google Site | Wikipedia | Instagram | Asive’s Blog

Email: asive.me@gmail.com, Web: www.asive.me