কাঁঠালের উপকারিতা ও গুনাগুন

বাংলাদেশের জাতীয় ফল কাঁঠাল। ফল হিসাবে কাঁঠাল শক্তির ভালো উৎস। পাকা কাঁঠাল খেতে যেমন স্বাদ একই সাথে কাঁঠালের বিচিও বেশ উপকারী খাবার। কাঁঠালের বিচি দিয়ে যেমন তরকারি রান্না করে খাওয়া যায় একই সাথে ভর্তা ও করে খাওয়া যায়। আবার অন্য দিকে কচি বা কাঁচা কাঁঠালও তরকারি রান্না করে খাওয়া যায় এবং পুষ্টি গুন অনেক। মোট কথা জাতীয় ফল হিসাবে কাঁঠাল খুবই স্বাস্থ্যকর একটি খাবার। কাঁচা কাঁঠাল রোগব্যাধি উপশমে যেমন কার্যকর, অন্যদিকে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়িয়ে দেয় অনেক গুণ।

কাঁঠালের উপকারিতা ও গুনাগুন

দেশের সর্বত্রই কম-বেশি এই কাঁঠাল পাওয়া যায়। বসন্ত ও গ্রীষ্মের প্রথমে কাঁচা অবস্থায় এবং গ্রীষ্ম ও বর্ষায় পাকা অবস্থায় পাওয়া যায়। যাদের ডায়াবেটিস আছে, তাঁদের কাঁঠাল খাওয়ায় খানিকটা বিধিনিষেধ আছে। এ ছাড়া কিডনি রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে যাঁদের রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা বেশি, তাদের কাঁঠাল না খাওয়াই ভালো।

কাঁঠালের ৪-৫ কোয়া থেকে ১০০ কিলো ক্যালরি খাদ্যশক্তি পাওয়া যায়। ২-৩ কোয়া কাঁঠাল আমাদের এক দিনের ভিটামিন ‘এ’ এর চাহিদা পূরণ করে। শিশু, কিশোর, কিশোরী এবং পূর্ণ বয়সী নারী-পুরুষ সব শ্রেণির জন্যই কাঁঠাল খুবই উপকারী ফল। গর্ভবতী এবং যে মা বুকের দুধ খাওয়ান তাদের জন্য কাঁঠাল দরকারি ফল।

কাঁঠালে কি কি উপকার পাওয়া যায়ঃ

  • কাঁঠাল হজম শক্তি বাড়ায়
  • কাঁঠাল ত্বকের জন্য ভালো
  • শরীরের ওজন কমায় ও রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় 
  • চোখ ভালো রাখে এবং হাড় মজবুত ও শক্ত করে 
  • কাঁঠাল ক্যান্সার প্রতিরোধ করে এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়
  • উচ্চ রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখে এবং হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়
  • কাঁঠাল হাঁপানি প্রতিরোধ করে
  • কাঁঠাল রক্তশূন্যতা প্রতিরোধ করে
  • কাঁঠাল থাইরয়েড নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে
  • কোষ্ঠ্যকাঠিন্য প্রতিরোধ করে পাইলসের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে
  • কাঁঠালে প্রচুর ভিটামিন এ আছে, যা রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে
  • সর্দি-কাশি রোগের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে
  • টেনশন এবং নার্ভাসনেস কমাতে কাঁঠাল বেশ কার্যকরী
  • কাঁঠাল গাছের শেকড় হাঁপানী উপশম করে
  • চর্মরোগের সমস্যা সমাধানেও কাঁঠালের শেকড় কার্যকরী
  • জ্বর এবং ডায়রিয়া নিরাময় করে কাঁঠালের শেকড়
  • দুগ্ধদানকারী মা তাজা পাকা কাঁঠাল খেলে দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়
  • প্রতিদিন ২০০ গ্রাম তাজা পাকা কাঁঠাল খেলে গর্ভবতী মহিলা ও তার গর্ভধারণকৃত শিশুর সব ধরনের পুষ্টির অভাব দূর হয়
  • গর্ভবতী মহিলারা কাঁঠাল খেলে তার স্বাস্থ্য স্বাভাবিক থাকে এবং গর্ভস্থসন্তানের বৃদ্ধি স্বাভাবিক হয়

কি কি উপাদান আছে কাঁঠালেঃ

কাঁচা বা পাকা, কাঁঠাল দুইভাবেই খাওয়া যায়। কাঁঠালে ভিটামিন এ, সি, থায়ামিন, রাইবোফ্লোবিন, আয়রন, ক্যালসিয়াম ও পটাশিয়াম রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে শর্করা, ক্যালোরি, ফ্রুক্টোজ ও সুক্রোজ।

কোথায় পাবেনঃ

সুপার শপে, ইকমার্সে, পাইকারি ও খুচরা বাজারে। এমন কি কাঁচা বাজারেও পাবেন। সাইজ ভেদে দাম ভিন্ন হয়। ৫০/ ৮০/১০০ টাকার মধ্যেই বড় সাইজের কাঁঠাল পাওয়া যায়। সাধারণত সাইজ ও পিস হিসাবেই কেনা বেচা হয়।

কখন খাবেন, কিভাবে খাবেনঃ

  • সকালে নাস্তার সাথে কাঁঠাল রাখতে পারেন
  • রাতে খাবারের পর কাঁঠাল রাখতে পারেন
  • রুটির সাথে কাঁঠাল খেতে পারেন
  • দুধ, ভাত ও কাঁঠাল মিক্স করে খেতে পারেন
  • কাঁঠালের বিচি ভর্তা ও তরকারিতে মিক্স করে খেতে পারেন
  • কাঁঠালের বিচি ভাজা মচমচা করেও খেতে পারেন
  • কাঁচা কাঁঠাল তরকারি (নিরামিষ) করে খেতে পারেন
  • কাঁঠাল, মুড়ি ও নারকেল মিক্স করে খেতে পারেন
  • কাঁঠালের বিচি খেতে পারবেন হালকা নাশতায়, সালাদ, তরকারি, হালুয়া হিসেবে
  • কাঁঠালের বিচি গুঁড়ো করে সকালের জুসেও খেতে পারেন

আরও পড়ুন, নিজে জানুন অন্যকে জানতে সাহায্য করুনঃ

ছবি ও তথ্যঃ গুগোল, সোশ্যাল মিডিয়া, নিউজ, ব্লগ ও উইকিপিডিয়া


লেখক ও গবেষক – প্রকৌশলী আছিব চৌধুরী

“Love yourself & you will get a way how to live” – Asive Chowdhury

# মেডিসিন থেকে দূরে থাকুন, নিয়মিত শরীর চর্চা করুন এবং সুস্থ্য থাকুন #

আপনার যে কোন মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ দিতে পারেন। পরবর্তীতে কি বিষয় নিয়ে লেখা চান সেটিও জানাতে পারেন ইমেইলের মাধ্যমে (asive.me@gmail.com)

My Research Publication in International Journal | About Asive Chowdhury Learn with Asive | Facebook | Twitter | LinkedIn | Instagram | Blog Spot YouTube | BudgerigarsWiki

I am a Google Local Guide | Wikipedia | Asive’s Blog

I am in Flicker | I am in Google Maps | I am in wikipedia Commons |I am a Designer | I am in Google Site

Email: asive.me@gmail.com, Web: asive.me