০৬০৮ ব্যাচের তাসনিয়ার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প

০৬০৮ ব্যাচের তাসনিয়ার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্পঃ

এক সময় স্টোরি লিখতে পছন্দ করত তাসনিয়া, সময় কাজ আর ব্যস্ততা সব মিলিয়ে আর হয়ে উঠে নাহ। ২০১৩ সালে ঢাকায় এনজিওতে জব করত তাসনিয়া। এনজিওতে কাজ করা অবস্থাই বিজনেস আইডিয়া মাথায় আসে, অনলাইনে পণ্য কেনা বেচা করবো ! কিন্তু কি বিক্রি করবো !অনেকেই থ্রি পিস বা শাড়ি বা গহনা বিক্রি করে হয়তো সেখান থেকেই অনুপ্রেরণা পাওয়া। যে চিন্তা সেই শুরু ৩ পিস থ্রি পিস নিয়ে অনলাইনে যাত্রা শুরু, সেলও হয়েছে, আত্ববিশাসও বেড়েছে ! কেনই বা না মার্কেটিং এ যে পড়াশুনা করেছে তাসনিয়া।যাই হউক সে বছরই রাজশাহী চলে আসতে হল, চাকরি ছেড়ে দিল একই সাথে ব্যবসাও।

২০১৭ সালে রাজশাহীতে আবারও একটি মোবাইল কোম্পানিতে চাকরি হয়, একই সাথে এমবিএ শুরু হয়। কিন্তু চাকরি আর পড়াশুনা একসাথে করাটা কঠিন হয়ে পড়ে। সিদ্ধান্ত নিতে হয় জব ছেড়ে দেওয়ার, যে চিন্তা সেই কাজ, জব ছেড়ে পড়াশুনা শুরু। এর মধ্যে ২০১৮ সালে বিবাহ, সংসার জীবন শুরু মানে জীবনের আরও একটি বড় অধ্যায়।বিয়ের পর সব কিছু থেকে কিছুটা বিচ্ছিন্ন, চলে যাচ্ছে কিন্তু চলার মধ্যে একটা আনন্দ বা কিছু করার আগ্রহ তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। এরই মধ্যেই সে আবিস্কার করে ড্রেসে নানান কাজ করে ড্রেস রিডিজাইন করতে ওর ভালো লাগে, হান্ডিক্রাফট এর মত ইউনিক ডিজাইন নিয়ে কাজ করতে ভালো লাগে, কথায় কথায় হাসবেন্ড এর সাথে আলাপও হয়।

রাজশাহী বিশ্ববিদালয়ে মার্কেটিং এ পড়েই সব সময় বিজনেজ টাইপ কিছু একটা করার আগ্রহ এক সময় নিজের শখকে বিজনেসে পরিনত করে, এই ক্ষেত্রে সব চেয়ে বেশি সাপোর্ট দিয়েছে হাসবেন্ড ও শাশুড়ি। এখন মেয়েদের নানান পণ্য নিয়ে কাজ করে তাসনিয়া। ধীরে ধীরে কাস্টমার পরিধিও বাড়ে, ফিডব্যাকও আসে, ভালো সেল ও আসে, এইতো পথ চলা শুরু…ছোট বোন আর মায়ের উৎসাহ সব সময় তাসনিয়াকে নতুন করে ভাবায় কিভাবে আরও একটু ভালো করা যায়, আরও একধাপ এগিয়ে যাওয়া যায়…ছোট বোনের সাপোর্ট তাসনিয়াকে এগিয়ে নিচ্ছে নিজের আত্ববিশ্বাসের দিকে…

হ্যাঁ শুরুতে টাকা পয়সা সমস্যা ছিল, অনেকেই হাসাহাসি ও ঠাট্টা করেছে বলেছে এই সব করে লাভ কি ! চাকরি কর, ইত্যাদি নানান বিষয়। কিন্তু স্বামী সব সময়ই এই গুলো ইগনোর করে এগিয়ে যেতে উৎসাহ দিয়েছে। নিজের বাড়ি, বাবার বাড়ি বা শশুর বাড়ি সব মিলিয়ে কখনও ঢাকা, কখনও রাজশাহী আবার কখনও চিটাগং এ যাতায়েত করতে হয় কিন্তু বিজনেস তো অনলাইন বেইজস, মানে যেখানেই থাকি না কেন কেনা বেচা চলছে বা চলবে।

চলে যাচ্ছে তাসনিয়া সংগ্রাম, নিঃসন্দেহে অনুপ্রেরণার গল্প।হ্যাঁ ওর স্টার্টআপের নাম “Fairy Fashion & Accessories”চমৎকার এই উদ্যোগকে আমরা স্বাগত জানাই আমাদের ০৬০৮ পরিবারের পক্ষ থেকে একই সাথে আমরা বিশ্বাস করি এমন সব উদ্যোগ আর গল্প গুলো আমাদের অনেক কিছু শিখাবে এবং উদ্যোগ নিতে সাহায্য করবে।তাসনিয়া জন্য অনেক অনেক শুভ কামনা একই সাথে আমরা চাই, নিজের উদ্যোগের পাশাপাশি অন্যদের অনুপ্রেরনা দেওয়ার কাজটি করে যাবি আর একে অন্যকে উৎসাহ দিবি…উদ্যোক্তা জীবনের গল্প ধারাবাহিক ভাবে চলবে…নিজের গল্পটি চট করে শেয়ার করে ফেলিস যা অন্যকে উৎসাহ দিবে বলে আমার বিশ্বাস…

লেখক ও গবেষক – প্রকৌশলী আছিব চৌধুরী

“Love yourself & you will get a way how to live” – Asive Chowdhury

# মেডিসিন থেকে দূরে থাকুন, নিয়মিত শরীর চর্চা করুন এবং সুস্থ্য থাকুন #

আপনার যে কোন মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ দিতে পারেন। পরবর্তীতে কি বিষয় নিয়ে লেখা চান সেটিও জানাতে পারেন ইমেইলের মাধ্যমে (asive.me@gmail.com)

My Research Publication in International Journal | About Asive Chowdhury Learn with Asive | Facebook | Twitter | LinkedIn | Instagram | Blog Spot YouTube | BudgerigarsWiki

I am a Google Local Guide | Wikipedia | Asive’s Blog

I am in Flicker | I am in Google Maps | I am in wikipedia Commons |I am a Designer | I am in Google Site

Email: asive.me@gmail.com, Web: asive.me